• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ১১:৫৫ অপরাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ব্রজেন্দ্রগঞ্জ রাম চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় দিরাইয়ে নুরুল হুদা মুকুট ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন মাহমুদুল হাসান চৌধুরী সিরাজের ঈদ শুভেচ্ছা সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান জিতু’র ঈদ শুভেচ্ছা আলহেরা জামেয়া ইসলামিয়া ফাজিল(ডিগ্রি) মাদ্রাসায়, ১মাস কুরআন প্রশিক্ষণ শেষে পুরস্কার বিতরণ দিরাইয়ে বিএনপির ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত যুক্তরাজ্য বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আজমল হোসেন চৌধুরী জাবেদের উদ্যোগে দোয়া ও ইফতার মাহফিল সিলেট মহানগর ৯ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের ইফতার বিতরণ মুক্তি পেলো আশিক সরকারের নতুন গান ‘ভুইল না আমায়’ ব্রজেন্দ্রগঞ্জ স্কুলের সভাপতি হলেন আজিজুল

নিশিরাতে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন রাতারগুল সোয়াম্প ফরেস্ট পড়ছে হুমকির মুখে

প্রতিনিধির নাম
প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ৩১ আগস্ট, ২০২১

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধিঃ

এশিয়া মহাদেশের অন্যতম বৃহৎ সোয়াম্প ফরেস্ট,গোয়াইনঘাট উপজেলার রাতারগুল জলার বন এলাকা থেকে অবৈধ দানব যন্ত্র ড্রেজার মেশিন দিয়ে নিশিরাতে বালু উত্তোলন করছে একটি প্রভাবশালী মহল। ওই বালু খেকো চক্রটি রাতারগুল জলার বন এলাকা থেকে দীর্ঘদিন ধরে ড্রেজার মেশিন দিয়ে দিবানিশি বালু উত্তোলন করে আসছে। ফলে দিনে দিনে হুমকির মুখে পড়ছে রাতারগুল সোয়াম্প ফরেস্ট। রাতারগুল সোয়াম্প ফরেস্ট এলাকায় দানব যন্ত্র ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করার কারণে গোয়াইন নদীর পূর্বাংশ অর্থাৎ রাতারগুল জলার বন এলাকা ধীরে ধীরে ভেঙ্গে নদীর সাথে বিলীন হচ্ছে। স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, বাইমার পার গ্রামের মৃত লালু মিয়ার ছেলে লাদেন মিয়া তাঁর একটি সঙ্গবদ্ধ দল নিয়ে নিশিরাতে দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে রাতারগুল জলার বন এলাকায় ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করেন। বালু ভর্তি প্রতিটি নৌকা থেকে ৩ হাজার টাকা করে চাঁদা তুলেন। জনা যায়, গোয়াইনঘাট চেঙ্গের খাল নদীতে বালু বোঝাই নৌকা থেকে বাইমার পার এলাকায় শ্রমিক টেক্সের নাম করে চলতি নদীতে ৫’শ থেকে ১ হাজার টাকা করে প্রতি ভলগেট নৌকার মাঝিদের কাছ থেকে প্রতিদিনই লাখ-লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এই চক্রটি। এ নদীতে চাঁদাবাজীতে যারা জড়িত তারা খুবই ভয়ঙ্কর। চাঁদাবাজদের মুল হোতা লাদেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।বালু বোঝাই নৌকা ভলগেট যাতায়াতের সময় নদীপথে ভলগেট, নৌকাগুলো চলাচলের সময় চলিতাবাড়ী, শিয়ালাহাওর,বাইমারপার নামক স্থানে এলেই নদীতে ইঞ্জিন চালিত ছোট নৌকা দিয়ে জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করে চাঁদাবাজ চক্রটি। সংঘবদ্ধ ওই চাঁদাবাজ চক্রটি প্রতিদিন প্রায় দুই থেকে পাঁচ শতাধিক ভলগেট নৌকা থেকে ৫’শ থেকে ১ হাজার টাকা হারে চাঁদা আদায় করে বলে জানান ভূক্তভোগীরা। তাদের দৌরাত্ম্য আর দাপটের কাছে অসহায় স্থানীয় লোকজন ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চায় না।

আর এসব পেশাদার চাঁদাবাজদের চাঁদাবাজী তাদের কাছে যেন নিত্য-নৈমত্যিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাদের নিষ্ঠুরতা আর মারমুখী হুমকিতে ভলগেট নৌকার মাঝি-চালকরা আতংকিত অবস্থায় জীবনের ঝুকি নিয়ে চলছেন নদীপথে। এমন তথ্যই জানালেন ভুক্তভোগী মাঝি, চালক ও নৌযানের মালিকরা। চাঁদাবাজীর সাথে সম্পৃক্ত বাকীদের গ্রেফতারের দাবি করেছেন এলাকাবাসী।

রাতারগুলে কর্মরত বিট কর্মকর্তা আবদুল ওয়াদুদের কাছে নিশি রাতে ডেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের কথা জানতে চাইলে তিনি স্বীকার করে বলেন গভীররাতে হওয়ায় আমরা ব্যবস্থা নিতে পারছিনা এবং আমরা যখন তাদের ধরার প্রস্তুতি নেই তারা টের পেয়ে ঐদিন রাতে আর বালু উত্তোলন করে না। তিনি আরও জানান, এখানে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন আমরা শীঘ্রই সিডিপিবির মাধ্যমে তালিকা তৈরি করে প্রশাসনের কাছে পাঠাবো।
গোয়াইনঘাট উপজেলা সহকারী কমিশনার( ভূমি) এ কে এম নূর হোসেন নির্ঝর বলেন,রাতারগুলে কোনভাবেই বালু উত্তোলন বৈধ না। এ ব্যাপারে স্থানীয় এলাকাবাসীর জনগণকে সচেতন হয়ে এগিয়ে আসতে হবে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে যত ধরনের আইনি সহযোগিতা প্রয়োজন আমরা করবো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category